বাংলাদেশি SEO ফ্রীল্যান্সারদের প্রধান ৫ টি সীমাবদ্ধতা ও উত্তরণ এর উপায় (পর্ব-২)

গত পর্বে ফ্রীল্যান্সারদের প্রধান কিছু সমস্যা নিয়ে লিখেছিলাম। দীর্ঘদিন দিন বিরতির পর আবার দ্বিতীয় পর্ব নিয়ে আপনাদের মাঝে হাজির হলাম।অনাকাঙ্খিত এই বিরতির জন্য আন্তরিক ভাবে দুঃখিত।

যাইহোক, আজকের পর্বে সমস্যা গুলোর সমাধান মূলক কিছু দিক নির্দেশনা দেওয়ার চেষ্টা করবো। তার আগে সমস্যাগুলো আর একবার একনজরে দেখে নেওয়া যাক।

১) পর্যাপ্ত জ্ঞানের অভাব        ২ ) ইংরেজি  জ্ঞান এর অভাব      ৩) প্রয়োজনীয় tools না থাকা

৪) পেশাদারি মনোভাব এর অভাব      ৫) কোয়ালিটি Maintain না করা

প্রথমে মাথায় রাখতে হবে যে, এগুলো একদিন কিংবা রাতারাতি সমাধানের কোনও বিষয় নয়। তবে ধৈর্য আর অধ্যবসায় থাকলে নিচের পদ্ধতি গুলো অনুসরণের মাধ্যমে আপনি আপনার স্কিল বাড়াতে পারবেন।

 কিভাবে SEO জ্ঞান বাড়াবেনঃ

যারা ফ্রীল্যান্সিং কাজের সাথে জড়িত তাদেরকে অধিকাংশ সময়ই বিভিন্ন বায়ারদের কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকতে হয়। যার ফলে আমাদের অনেকের মধ্যেই নতুন কিছু জানা কিংবা পড়ার অভ্যাসটি গড়ে ওঠে নি।

SEO জ্ঞান বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন সাইটগুলো নিয়মিত ভিজিট করতে হবে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য কিছু সাইট হল searchenginejournal.com, mattcutts.com, source-wave.com, moz.com etc. এগুলোতে নিত্যনতুন অনেক বিষয়ের পাশাপাশি অনেক Advanced বিষয় নিয়েও জানতে পারবেন। সব কিছুই বুঝতে বা জানতে হবে এমন নয় তবে এতে নতুন কিছু জানার অভ্যাস গড়ে উঠবে।

পড়ার পাশাপাশি বিভিন্ন Tutorial ভিডিও দেখাটা ও জরুরি। এ ক্ষেত্রে Youtube এর বিকল্প নেই। এখানের উল্লেখযোগ্য চ্যানেল গুলো হল Goolge Webmaster Help , MOZ , Matthew Woodward etc.  এর বাইরে বিভিন্ন SEO ফোরাম রয়েছে যেমন warrior Forum , Black Hat World , Traffic Planet etc. । এগুলো তে অংশগ্রহণ এর মাধ্যমে আপনি আপনার SEO জ্ঞান বাড়াতে সক্ষম হবেন।

২) ইংরেজি  জ্ঞান বাড়ানোঃ

এটি আমাদের অনেকেরই সমস্যা। আমাদের দুর্বলতা মূলত শোনা এবং লিখায়। বায়াররা এটা ভালমতই জানে যে আমাদের  ইংরেজি জ্ঞান তাদের মত হবে না। তবে বায়ার কি বলছে বা তার কাজ কি এটা যদি আপনি বুঝতে না পারেন সে ক্ষেত্রে আপনি তার প্রশ্নের সঠিক উত্তর দিতে পারবেন না। অনেক সময় দেখা যায়  যে কাজ আপনি ঠিকই পারেন কিন্তু বায়ার এর কথা বুঝতে পারেন নি বলে কাজ তা ধরতে পারেননি ।চলুন দেখা যাক কিভাবে আপনি ইংরেজি শোনা এবং বলাতে দক্ষতা অর্জন করতে পারেন।

সঠিক ইংরেজি বুঝতে পারাঃ

এক্ষেত্রে আপনি যদি নিয়মিত কিছু ইংরেজি ডিসকাশন শোনেন তাহলে অল্প কিছুদিন এর মধ্যেই আপনি তাদের Accent ধরে ফেলতে পারবেন। Antimoon.com, LearnEnglish.com, TalkEnglish.com ইত্যাদি সাইটে আপনারা কিছু সহজ উচ্চারণমূলক কথোপকথন পাবেন। এগুলো শুনে শুনে আপনি ইংরেজি উচ্চারণ আয়ত্ত করতে পারবেন। ফলে শোনার পাশাপাশি আপনি বলতেও পারবেন ধীরে ধীরে। এছাড়া ইংরেজি ছবি দেখা, নিউজ শোনা এসবত আছেই।

সঠিক ভাবে বলতে পারাঃ

সঠিক ভাবে ইংরেজি বলতে পারার জন্য প্র্যাকটিস এর কোনও বিকল্প নেই। এক্ষেত্রে আপনাকে সবচেয়ে বেশি সাহায্য করতে পারবে আপনার বন্ধু কিংবা পরিচিত কেউ। আমার যেটা উপদেশ থাকবে সেটি হল ভুল হোক শুদ্ধ হোক দুইজন কথা চালিয়ে জান ইংরেজি তে। এতে করে আপনার সাবলীলতা আসবে কথায়। পরবর্তীতে আপনি যখন বায়ারের সাথে কথা বলবেন তখন এই প্র্যাকটিস কিন্ত অনেক উপকারে আসবে। এর বাইরে নিজে নিজে প্রাকটিস করার জন্য এই সাইটটি আমার কাছে খুব ভাল মনে হয়েছে। এখানে আপনি একই সাথে conversation শুনতে পারবেন, কুইজ এর উত্তর দিতে পারবেন এবং written scriptও পাবেন।

Imrpove English

  ৩) প্রয়োজনীয় Tools কেনাঃ  

আগের পর্বে বলেছিলাম SEO কাজ করতে গেলে বিভিন্ন সফটওয়্যার বা টুলস এর প্রয়োজন হয়। এখন এখানে প্রশ্ন জাগতে পারে যে নিজের পকেটের টাকা খরচ করে টুল কেনার যৌক্তিকতা কতটুকু। প্রাথমিক ভাবে এসব টুল না কিনলে ও চলবে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে বায়াররা টুল এর জন্য পে করে থাকে।  তবে আপনার আয় বৃদ্ধির সাথে সাথে এটিও মাথায় রাখা ভাল। সব টাকা খরচ না করে আস্তে আস্তে কিছু সফটওয়্যার/টুল কেনার অভ্যাস গড়ে তোলা উচিত। যেমন Keyword Research টুল হিসেবে Long tail pro খুবই জনপ্রিয়। এছাড়া আছে Competitor Analysis এর জন্য আছে opensiteexplorer, majesticseo, scrapebox ইত্যাদি। এর মধ্যে opensiteexplorer, majesticseo প্রতি মাসে subscription renew করতে হয় । Long tail pro এবং Scrapebox এককালীন ফী দিয়ে কেনা যাবে।

 ৪) পেশাদারি মনোভাব বৃদ্ধিঃ

এটি আর কিছুই নয়। আপনার সচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমেই এটি সমাধান করা সম্ভব। বায়ারদের সাথে দ্রুত যোগাযোগ রক্ষা করার জন্য আপনাকে সার্বক্ষণিক ইন্টারনেট এর সাথে যুক্ত থাকা উচিত। কম্পিউটার এর পাশাপাশি মোবাইলেও ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারেন। এতে করে নিয়মিত মেইল চেক করতে পারবেন যদিও আপনি পিসির সামনে না থাকেন।

এর বাইরে কাজের ব্যাপারে সচেতন হওয়া জরুরি। কোনও কাজ নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই শেষ করার চেষ্টা করবেন। একান্তই না পারলে বায়ার কে জানাবেন। ঘন ঘন অজুহাত দেখালে সবাই বিরক্ত হয়। তাই পারিবারিক কিংবা ব্যক্তিগত বিষয় গুলো নিয়ে বেশী অজুহাত দেওয়া উচিত নয়। কিছু কমন সমস্যা যেমন কারেন্ট নাই, নেট নাই, অসুস্থ, বিয়ে খেতে যাওয়া এগুলার সাথে বায়াররা খুব ভালমত পরিচিত। সুতরাং এসব না বলাই শ্রেয়। মিথ্যের আশ্রয় না নিয়ে সরি বলার অভ্যাস থাকা উচিত।

 ৫) কোয়ালিটি Maintain করাঃ

আপনি উপরের কাজগুলো যথাযথ ভাবে সম্পাদন করতে পারলে কাজের কোয়ালিটি আপনা আপনিই উন্নত হবে। আপনি যখন SEO নিয়ে আরও জানবেন তখন আপনিই বুঝবেন কোয়ালিটি ধরে রাখতে কি করতে হবে। উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি গুগল এর সর্বশেষ আপডেট সম্পর্কে জেনে থাকেন এবং এর ফলে কার কি হয়েছে এসব জানেন তাহলে আপনি অবশ্যই বুঝতে পারবেন যে এখন কোন ধরনের কাজ করা উচিত। SEO এমন কোনও ক্ষেত্র নয় যে এখানে একবার যা শিখেছেন তা আজীবন করে যাবেন। নিত্য নতুন প্রযুক্তি ও খবরের সাথে যুক্ত থাকলে আপনি সহজেই একজন দক্ষ ফ্রীল্যান্সার হতে পারবেন।

পরবর্তীতে আরও অনেক প্রয়োজনীয় বিষয় নিয়ে আবার আপনাদের মাঝে আসব। আমাদের ব্লগটিতে আপনার নিয়মিত উপস্থিতি কামনা করছি। আপনাদের যদি কোনও সাজেশন থেকে থাকে আমাদের কে অবশ্যই জানাবেন। ব্লগ পোস্টের নিয়মিত আপডেট পেতে নিচের বক্সে subscribe করুন।